4 February- 2023 ।। ২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শ ম রেজাউল করিম – একজন যোগ্যতাসম্পন্ন সময়োপযোগী দরদী নেতার কথা

।।তৃণমূলের আত্মকথা।।
পর্ব-১

  • “শ ম রেজাউল করিমের বিকল্প এখনো তৈরি হয় নাই ভাই-তার জায়গায় যাইতে পারবে না কেউ”প্রবীণ আওয়ামী লীগ নতা আনোয়ার হোসেন ঠিক এভাবেই অকপটে বলে দিলেন,শেষে বললেন কথা পরিষ্কার “
    • এ প্রজন্মের জনপ্রিয় একজন যুবলীগ নেতা সাবেক ভিপি ও বর্তমান পিরোজপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম বায়েজিদ হোসেন সম্প্রতি তার বক্তব্যে আরেকটি বাস্তবতা তুলে ধরেন-“শ ম রেজাউল করিম আমাদের রাজনৈতিক শিক্ষাগুরু”

    “আমার চোখে দ্যাখা শ ম রেজাউল করিম আমাদের নতুন প্রজন্মের কাছে একজন আলোর ফেরিওয়ালা “

    হাতে নিয়ে আলোকবর্তিকা-যিনি দূরীভূত করছেন সকল অন্ধকার।
    উন্নয়ন মন্ত্রী নামে আখ্যায়িত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন বাংলাদেশের মানুষের কাছে অবহেলিত পিরিজপুর কে নতুন করে ঢেলে সাজিয়ে যে মানুষটি ডিজিটাল পিরোজপুর এর জনক হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন সাধারণ মানুষের কাছে, তৎকালীন সেনাসমর্থিত সরকারের আমলে ভয়-ভীতি লোভকে উপেক্ষা করে যিনি দাঁড়িয়েছিলেন জননেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে, যখন পিরোজপুরসহ সারা বাংলাদেশের অনেক নেতাই জননেত্রী শেখ হাসিনার পাশ থেকে চলে গিয়েছিলেন নিজেদের গা বাঁচিয়ে নেয়ার জন্য, জীবনের সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিয়ে সেসময় যে নেতা জননেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে লড়েছিলেন সত্যের হয়ে, জাতীয় রাজনীতির পাশাপাশি তৃণমূলের জনপ্রিয় এই নেতা যিনি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা, জাতীয় চার নেতা হত্যা মামলা, 2004 সালের 21 আগস্ট গ্রেনেড হামলার মামলা সহ আওয়ামী লীগের অনেক গুরুত্বপূর্ণ মামলায় তিনি লড়েছেন আওয়ামী লীগ,আওয়ামী লীগ প্রধান ও আওয়ামী লীগের সাধারণ নেতাকর্মীদের হয়ে।সম্মূখ মৃত্যি জেনেও তার দলের চরম ক্রান্তিলগ্নে এতটাই ঝুঁকি নিতে পেরেছেন এবং তারই কর্মের সফলতার স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক, পরবর্তীতে মনোনয়ন পেয়ে সর্বোচ্চ ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়া ও পরবর্তীতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করা, এবং পরবর্তীকাল থেকে আজকে পর্যন্ত মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সফলভাবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা কালিন সময়ে তিনি মন্ত্রণালয়ে এনেছেন নতুনত্ব, বরাবরের বিভিন্ন ঘটনা এবং বিভিন্ন কার্যের ধারায় গা ভাসিয়ে না দিয়ে বরং তিনি সরকারের এই গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়কে করেছেন জনবান্ধব। বর্তমানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করাকালীন সময়ে এনেছেন এ মন্ত্রণালয়ের নতুনত্ব মোটকথা যেখানে নানাবিধ সমস্যা সেখানেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার স্নেহের রেজা। শ ম রেজাউল করিম জনবান্ধব এবং এই জনবান্ধবতা সৃষ্টিতে তার কোন পেশি শক্তিকে কাজে লাগাতে হয়নি, তাকে টাকা দিয়ে মানুষ কিনে নিতে হয়নি তাকে টাকা দিয়ে জনপ্রিয়তা কিনতে হয়নি, লোভের সাথে স্বার্থের সাথে নিজের স্বার্থের সাথে যুদ্ধ করে লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে থেকে তিনি লড়েছেন দলের জন্য,কাজ করে চলছেন সাধারণ নিপীড়িত নির্যাতিত নেতাকর্মীদের জন্য। সুতরাং কে কি বলল, না, না বললো বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার একটি ভাষণ নিয়ে ভাষণটিকে বিভিন্নজন বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে দেখছেন। আবেগ দিয়ে আর যাই হোক আওয়ামী লীগের রাজনীতি চলে না বাস্তবতায় এসে যা প্রতীয়মান হয়,দল
    দল প্রধান, দলীয় নেতা-কর্মী -তৃণমূলের নেতাকর্মীরা থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছেন মানুষের অন্তরে। যায়গা করে নিয়েছেন তার দক্ষতা দিয়ে, তার অভিজ্ঞতা দিয়ে তার সততার দিয়ে।শ ম রেজাউল করিমের আরেকটি দিক হলো তিনি একজন প্রখ্যাত টকশো ব্যক্তিত্ব। প্রযুক্তির বিকাশের হাত ধরে গনমাধ্যমের বিকশিত হওয়ার সাথে সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে যুক্তি দিয়ে বিভিন্ন বিষয়কে সঠিকতা প্রমাণিত করে মানুষের জন্য আওয়ামী লীগ সরকার জননেত্রী শেখ হাসিনার মানুষের জন্য কাজ করা এবং দেশের উন্নয়ন অগ্রগতির কথা তিনি পৌঁছে দিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশি সহ,সারাবিশ্বের বুকে।
    কাজেই, কাজ সততা মনুষ্যত্ব অভিজ্ঞতা জনপ্রিয়তা এর কোনোটাতেই পিছিয়ে নেই শ ম রেজাউল করিম বরং অনেক এর চেয়ে অনেক অংশে এগিয়ে রয়েছেন জনপ্রিয় এই নেতা।
    গত সাড়ে তিন বছরে পিরোজপুর-১ আসনের মানুষ আপনারা একজন শ ম রেজাউল করিমের কারনে যতটা উন্নয়ন পেয়েছেন স্বাধীনতার পর থেকে পিরোজপুরে এত উন্নয়ন কেউ চোখে দ্যাখেনি,উদাহরণস্বরূপ পিরোজপুর -১ আসনের গ্রাম গঞ্জের রাস্তা ব্রিজ-কালভার্ট এর চলমান কাজ সহ, প্রায় ৭০ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বাকী কাজেরও ইতিবাচক প্রকৃয়া চলমান রয়েছে।অর্থাৎ উন্নয়ন
    আপনাদের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিয়েছেন এই নেতা। করোনা মহামারী কালীন কথা ভাবুন যখন অনেক নেতা ঘর থেকে বের হন নি, সেখানে শ ম রেজাউল করিম বারবার ছুটে গিয়েছেন পিরিজপুরের আপামর মানুষের কাছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করেছেন আপনাদের, অর্থাৎ জনবিচ্ছিন্ন হননি। পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপন এর কাজটি ছিলো চ্যালেঞ্জিং,তবুও তা শ ম রেজাউল করিম এর কারনে বাস্তবায়ন হয়েছে।পিরোজপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, আবাসন প্রকল্প,বিসিক শিল্প নগরী, বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণ, আইসিটি পার্ক স্থাপন সহ বেশ কয়েকটি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের পথে।সুতরাং সাধারণ মানুষরাই মন থেকে চান তাদের নেতা,তাদের প্রতিনিধি কাজের মানুষ হোক।সুতরাং জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার এই সফরসঙ্গী, যিনি নিজগুণে মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছেন।শ ম রেজাউল করিম ছিলেন, আছেন ভবিষ্যতেও থাকবেন ইনশাআল্লাহ। ইনশাআল্লাহ তিনি নিজগুণে আবারো জয়ী হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে
    পিরোজপুর -১ আসন উপহার দিবেন ইনশাআল্লাহ।
    শ ম রেজাউল করিমকে নিয়ে মানুষ ভবিষ্যতের স্বপ্ন দ্যাখে,ক্যারিশমেটিক এই নেতা কথা আর কাজের মিল রাখতে শতভাগ সক্ষম হয়েছেন।এজন্য তাকে “লিডার অব প্রমিজ” নামে আখ্যায়িত করেছেন এপ্রজন্মের তরুন মুজিব আদর্শের সেনারা।গতানুগতিক ধারাবাহিকতা থেকে বের হয়ে নতুন আশার আলো দেখিয়েছেন এই নেতা।বিশেষ করে স্বাধীনতাকালীন সময় থেকে আওয়ামী লীগের আসন নামে পরিচিত এই পিরোজপুর -১ একসময় বিএনপি জামাতের দখলে চলে যায়,ওল্ড জেনারেশনের অনেক নেতা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন এজন্য পিরোজপুরের একটি পরিবারই দ্বায়ী। তারা দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে পিরোজপুরে এনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী সুধাংশু শেখর হালদারকে বারবার পরাজয় বরণ করতে বাধ্য হয়ে করেছিলো।১/১১ পরবর্তী সময়ে ২০০৮ এর নির্বাচনে সাঈদুর রহমান আউয়াল(এ কে এম এ আউয়াল) বিজয়ী হওয়ার পার, আওয়ামী লীগের রাজনীতি পরিবারতন্ত্রের রাজনীতিতে পরিণত হয়।ত্যাগী তৃণমূল নেতা কর্মী হামলা মামলার শিকার হন।পুরষ্কৃত করা হয় উড়ে এসে জুড়ে বসাদের।এভাবে দশশ বছর চলে।এরকমই বিবৃতি দিয়েছেন প্রবীণ নেতা কর্মীরা।শ ম রেজাউল করিম এর আগমন ঘুটঘুটে অন্ধকারের মাঝে আলোর ঝলকানির মতো বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের প্রাণ খ্যাত তৃণমূল নেতাকর্মীরা।
    রেজাউল করিম বর্তমানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন।জাতীয় কাজকর্মের ফাঁকে যখনই সুযোগ পান নিজ এলাকায় এসে সবার পাশে সুখে দুঃখে-উৎসবে আনন্দে পাশে থাকেন।নিবিড় বন্ধনে আবদ্ধ করার গুন ক্ষমতা রয়েছে,তেমনি কাজের মাধ্যমেও তিনি মানুষের মন জয় করে নিয়েছেন।আত্ম অহমিকা মুক্ত এ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব তাই এখন পিরোজপুরের মানুষের মনের মানুষ। পিরোজপুরকে ডিজিটাল পিরোজপুর গড়ার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।এ যেন বিরামহীন ছুটে চলা এক আলোর ফেরীওয়ালা।

    মোঃআমিনুল ইসলাম (আমিন মোস্তফা)
    লেখক-
    কলাম লেখক,রাজনৈতিক নেতা।

    Sharing is caring!



    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *



    More News Of This Category


    বিজ্ঞাপন


    প্রতিষ্ঠাতা :মোঃ মোস্তফা কামাল
    ◑উপদেষ্টা মহোদয়➤ সোহেল সানি
    ◑নজরুল ইসলাম মিঠু ◑তারিকুল ইসলাম মাসুম ◑এডভোকেট হুমায়ুন কবির(আইন উপদেষ্টা)
    প্রধান সম্পাদক : মোঃ ওমর ফারুক জালাল

    সম্পাদক: মোঃ আমিনুল ইসলাম(আমিন মোস্তফা)

    নির্বাহী সম্পাদক: শফি মাহমুদ

    বার্তা ও বানিজ্যিক সম্পাদক: বজলুর রহমান
    প্রধান প্রতিবেদকঃ লাভনী আক্তার

    ইমেইল:ajsaradin24@gmail.com

    টেলিফোন : +8802-57160934

    মোবাইল:+8801725-484563, বার্তা সম্পাদক+8801716-414756
    টপ