23 September- 2021 ।। ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসে প্রভাষক সমর কৃষ্ণ ঘরামীর ভাবনা

||মোঃ মাসুদুর রহমান||

মানবকেন্দ্রিক পুনরুদ্ধারের জন্য সাক্ষরতা : ডিজিটাল বিভাজন কমিয়ে আনা’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারাবিশ্বে উদযাপিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস। বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) সারা বিশ্বের সাথে একযোগে বাংলাদেশ‌ও আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস ২০২১যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে। আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসে বাংলাদেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সাক্ষরতার হার সহ বিভিন্ন বিষয়ে দৈনিক আজসারাদিন এ সমসাময়িক বাস্তবতায় নিজের ভাবনা তুলে ধরেছেন তরুণ শিক্ষাবিদ, শিক্ষানুরাগী, পিরোজপুর সরকারি মহিলা কলেজের প্রভাষক (প্রাণিবিদ্যা) “সমর কৃষ্ণ ঘরামী”। প্রভাষক সমর কৃষ্ণ ঘরামীর প্রবন্ধ উল্লেখ করা হলো। . “”আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস দেশের সকল প্রান্তিক শিক্ষিত জনগোষ্ঠীকে জানাচ্ছি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। বাংলাদেশ আয়তনের দিক দিয়ে একটি ক্ষুদ্রতম দেশ হলেও সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিক দিয়ে অন্যতম বৃহৎ একটি রাষ্ট্র। জনসংখ্যা গরিষ্ঠ ক্ষুদ্র রাষ্ট্রের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মৌলিক চাহিদাগুলো- খাদ্য ,বস্ত্র, বাসস্থান , শিক্ষা,চিকিৎসা পূরণে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হয় প্রতিনিয়ত। তথাপি সরকারের বিভিন্ন কার্যকরী পদক্ষেপে বিশেষ করে শিক্ষাক্ষেত্রে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর শিক্ষার মান উন্নয়নে সাক্ষরতার হার বৃদ্ধিতে গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি প্রশংসনীয়। সারা বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশ আজ একটি স্বল্পোন্নত দেশে পরিণত হয়েছে।বর্তমানে আমাদের দেশের স্বাক্ষরতার হার74.7% যা যথেষ্ট আশাবাদী হওয়ার মত। এই পরিসংখ্যানটিকে আমাদের পজেটিভলি দেখাতে হবে। আমরা যে এলডিসি থেকে বেরিয়ে নিম্ন মধ‍্যম হারের দেশের কাতারে পৌছাতে পেরেছি তাতে আমাদের স্বাক্ষরতার হারের অবদান রয়েছে। এই অগ্রযাত্রায় বর্তমান শিক্ষা বান্ধব বাংলাদেশ সরকারের যথাযথ পদক্ষেপের ভূমিকা রয়েছে। তবে এখানেই আমাদের থেমে থাকার সুযোগ নেই। আমরা যার 2041 সালের উন্নত দেশের স্বপ্ন দেখি তাদেরকে এখন Quality Education নিয়ে ভাবতে হবে। SDGs এর 4 নম্বর গোল হল মানসম্পন্ন শিক্ষা। যে শিক্ষার মাধ‍্যমে আমাদের দক্ষ, নৈতিকতা সম্পন্ন, মানবিক মূল‍্যবোধ সম্পন্ন পেশাজীবী তৈরী করতে হবে। যার মাধ‍্যমে আমরা আমদানি নির্ভরতা কমিয়ে অধিক উৎপাদনশীল জাতি হিসেবে গড়ে তুলব। আর এই জাতি গ ড়ার জন‍্য আমাদের বেশ কিছু চ‍্যালেঞ্জ র য়েছে। এখনো শিক্ষা খাতে জিডিপির অংশমাত্র 2.05% অথচ যা হ ওয়া উচিত 5 বা 6%। এবং এই শিক্ষার যারা কারিগর তাদেরকে দক্ষ করে গড়ে তোলার জন‍্য তাদের গবেষণার ও বেশি বেশি প্রশিক্ষণের সুযোগ দিতে হবে। এক ই সাথে তথ‍্য যোগাযোগ প্রযুক্তির যথাযথ ব‍্যবহার সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের ও অভিভাবকদের সচেতন হতে হবে। ইলেক্ট্রনিক্সক ডিভাইস ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ‍্যমের ব‍্যবহার যদি যথোপোযুক্তভাবে করা না যায় তবে আগামী প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের জন‍্য পরিনাম সুখকর হবে না। তাই Quality Education নিশ্চিত করতে সরকার শিক্ষক অভিভাবক সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।””

Sharing is caring!





More News Of This Category


বিজ্ঞাপন


প্রতিষ্ঠাতা :মোঃ মোস্তফা কামাল

প্রধান সম্পাদক : মোঃ ওমর ফারুক জালাল

সম্পাদক: মোঃ আমিনুল ইসলাম(আমিন মোস্তফা)

নির্বাহী সম্পাদক: এ আর হানিফ
কার্যালয় :-
৫৩ মর্ডান ম্যানশন (১২ তলা)
মতিঝিল, ঢাকা-১০০০

ইমেইল:ajsaradin24@gmail.com

টেলিফোন : +8802-57160934

মোবাইল:+8801725-484563,+8801942-741920
টপ